সৌদিআরবে গত ২৪ ঘন্টায় কভিড-১৯ এ আক্রান্তের চেয়ে সুস্থতার হার বেশি। ১৩ জন মৃত্যু বরণ করেন।

মক্ক(সৌদি আরব) প্রতিনিধিঃ তাজউদ্দিন তারেক।

আজকে সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী একদিনে সর্বচ্চ সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরে গেছেন ২হাজার ৯শ ৬৩জন। পাশাপাশি আজ দেশটিতে সর্বাদিক মৃত্যুবরণ করেছেন ১৩ জন। দেশটিতে গত দুই মাসে এটাই সর্বচ্চ মৃত্যুর ঘটনা। আজ নতুন করে করোনা রোগী শনাক্ত করা হয় ২ হাজার ৬শ ৪২জন। এই নিয়ে মোট করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যাটা দাড়ালো ৬৭,৭১৯জনে। এই পর্যন্ত মোট মৃত্যুবরণ করেছেন ৩৬৪জন। এবং এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৩৯হাজার ৩জন। আজকেও আক্রান্তের থেকে সুস্থতা বেশি। দিন দিন আক্রান্তের পাশাপাশি বাড়ছে সুস্থতার সংখ্যা। এখন পর্যন্ত ২৮,৩৫২ জন চিকিৎসাধীন আছে বলে জানিয়েছে সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

এই দিকে আজ আক্রান্ত প্রদেশ গুলোর মাঝে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয় রাজধানী রিয়াদে সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ৮৫৬ • জেদ্দা ৪০৩ • মক্কা ২৮৯
মদীনা ২০৫ • দাম্মাম১৯৭ • আল জিরান১১৮ • জুবাইল ৮৭. ক্বতিফ৭৭ • খোবার ৭৩• তাইফ৫২ • হুফফ এবং ধহরান ৪৯ করে • রাস তানুরাহ ও নাজরান ১৫ জন করে ৩০ জন। অন্যান্য অঞ্চলের আক্রান্তের সংখ্যা কিছুটা কম।

সৌদিতে আক্রান্তের দিক থেকে প্রবাসী বাংলাদেশীদের হার বেশি। এর মধ্যে বাংলাদেশি নারী-পুরুষ আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৭ হাজার জন, এপর্যন্ত ১৪০ বাংলাদেশি মৃত্যু খবর জানা গিয়েছে।

সমাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে আগামীকাল ২৩মে থেকে ২৭মে পর্যন্ত পূরো সৌদি আরবে লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছে। কারফিউ চলাকালীন সময়ে সুপারমার্কেট, বাকালা, হাইপারমার্কেট ও ফুয়েল স্টেশন ২৪ ঘন্টাই খোলা রাখা যাবে। মাংস ও সব্জির দোকান, এবং গ্যাস সিলিন্ডার রিফিল স্টেশন খোলা রাখা যাবে ভোর ৬টা থেকে দুপুর ৩টা পর্যন্ত।

সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত রেস্টুরেন্ট, ক্যাফেটেরিয়া ও খাবারের দোকান খোলা রাখা যাবে।

১৫ বছরের কম বয়সী শিশুদের অভিভাবকের সাথে বাইরে যাবার জন্য পারমিট এর প্রয়োজন হবে না। তবে, ১৫ বছরের কম বয়সী শিশু সুপারমার্কেট এবং হাইপারমার্কেটে যেতে পারবেন না।

করোনা সংক্রান্ত সতর্কতা আইন লঙ্ঘনকারীদের ভিসা বাতিল করা হবে ও তাদেরকে পূনরায় সৌদি আরবে প্রবেশ করতে দেওয়া হবেনা বলে আইন পাস করেছেন সৌদি সরকার

SHARE