শিরোনাম
  ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের সুস্থতা কামনায় সৌদিআরব বিএনপির দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা।       প্রবাসীদের পছন্দের প্রার্থী অধ্যক্ষ সিপার উদ্দিন আহমেদ       আহমেদ আলি মুকিব সুবর্ণ জয়ন্তীর আহ্বায়ক হওয়াই সৌদি আরব জাসাস এর উষ্ণ শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।        ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের নামে ভোটের অধিকার কেড়ে নেওয়া হয়েছে’ আহমদ আলী মুকিব,       সাদাকে সাদা কালোকে কালো বলুনঃ দৈনিক দেশ বার্তা’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে মফিজুর রহমান।       যুবদল আহ্বায়ক আব্দুল মান্নান এর মাতা মরহুম আছিয়া খাতুন, স্মরনে চট্টগ্রাম ফোরামের দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত।        আব্দুল মান্নান এর মায়ের মৃত্যুতে সৌদি আরব বিএনপির সভাপতি আহমদ আলী মুকিবের শোক প্রকাশ       আজ জেদ্দায় আরাফাত রহমান কোকো স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্ট,চট্টগ্রাম বনাম সিলেট সুপার স্টার,       সৌদি আরব প্রবাসী শরিয়তপুর কল্যাণ সমিতির অভিষেক অনুষ্ঠিত হয়       আওয়ামী দুঃশাসন আর দূর্নীতিতে ঢাকা আজ ক্যাসিনো রাজ্যে পরিনত হয়েছে, তারেক রহমান, বি এন পির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান,    

আজ শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:০১ অপরাহ্

== জসিম মাহমুদ==
বিডি সংবাদ৭১_________
১০ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস। জাতিসংঘ, সরকার ও বিভিন্ন এনজিওর উদ্যোগে নানা কর্মসূচির মাধ্যমে সারা বিশ্বে এই দিবসটি পালিত হয়। জাতিসংঘ সনদে বর্ণিত বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠা ও মানবাধিকার সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে ১৯৪৮ সালের ১০ ডিসেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ সার্বজনীন মানবাধিকার ঘোষণাপত্র অনুমোদন করে।
মানবাধিকার বিষয়টি বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে আলোচিত একটি বিষয়। মানবাধিকারের আক্ষরিক অর্থ হলো মানুষের অধিকার। সাধারণত মানবাধিকার বলতে মানুষের সে সকল অধিকার বোঝায় যা নিয়ে সে জন্মগ্রহণ করে, যা তাকে বিশিষ্টতা দান করে এবং যা হরণ করলে সে আর মানুষ থাকে না। অর্থাৎ মানুষকে মানুষ হিসেবে বেঁচে থাকার জন্য যে সকল অধিকার দরকার তাই মানবাধিকার। মানবাধিকার সে সকল অধিকারকে নির্দেশ করে যা স্বাভাবিক ও সহজাত। মানবাধিকার মানুষের বেঁচে থাকার জন্য এবং সামাজিক জীব হিসেবে নিজের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য অপরিহার্য। মূলত মানবাধিকার হলো, Freedom from want, Freedom from fear and Assurance of liberty. অর্থাৎ মানবাধিকার হচ্ছে ক্ষুধা ও ভয় থেকে মুক্তি এবং স্বাধীনতার নিশ্চয়তা। এর যেকোনো একটি ছাড়া মানবাধিকার পরিপূর্ণতা পায় না। প্রত্যেক ব্যক্তির মর্যাদাকে সম্মান প্রদর্শনেই মানবাধিকার নিহিত। মানবাধিকার ব্যক্তিকে স্বাধীনতা, সমতা এবং মর্যাদা দিয়ে থাকে।

মানবাধিকারের ধারণা কিভাবে এলো?

UN Declaration of Human Rights (বিশ্বজনীন মানবাধিকার ঘোষণা):
১৯৪৫ সালের ২৪ অক্টোবর ৫১টি সদস্য রাষ্ট্র নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয় জাতিসংঘ যার বর্তমান সদস্যসংখ্যা ১৯২। প্রতিষ্ঠার সময়ই গঠিত হয় জাতিসংঘের সংবিধান যা টঘ ঈযধৎঃবৎ বা জাতিসংঘ সনদ হিসেবে পরিচিত। এই সনদের অনন্য বৈশিষ্ট্য হলো এতে মানবাধিকার ও মৌলিক অধিকার সংরক্ষণ, বাস্তবায়ন ও উন্নয়নের জন্য বেশ কিছু ধারা সংযোজিত হয়েছে। বিশ্বব্যাপী মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় এই সনদের মুখবন্ধ, অনুচ্ছেদ ১(৩), ১০, ১৩ প্যারা ১(৯), ৫৫, ৬২, ৬৮ ও ৭৬ নং ধারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। তা ছাড়া জাতিসংঘের অধীনস্থ মানবাধিকার কাউন্সিল সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে বিশ্ব মানবাধিকার পরিস্থিতি উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।
জাতিসংঘ সনদে বর্ণিত বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠার ও মানবাধিকার সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে ১৯৪৮ সালের ১০ ডিসেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ সার্বজনীন মানবাধিকার ঘোষণা অনুমোদন করে। এই মানবাধিকার ঘোষণাপত্রে ৩০টি অধিকারকে মানবাধিকার হিসেবে সুস্পষ্টভাবে ঘোষণা করা হয় এবং এ সকল অধিকার বাস্তবায়নে কার্যকরী উদ্যোগ গ্রহণের ঘোষণা দেয়া হয়। এজন্য UDHR-কে মানবাধিকারের পরশপাথর বা মানদন্ড হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সার্বজনীন মানবাধিকার ঘোষণায় ৩০টি অনুচ্ছেদ রয়েছে। এর মধ্যে ১ ও ২ নং ধারায় মানবাধিকারের মূলনীতি বর্ণনা করা হয়েছে। ৩-২১ নং ধারায় নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার এবং ২২-২৭ নং ধারায় অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অধিকারের কথা বলা হয়েছে। ২৮-৩০ নং ধারায় এই সনদের প্রায়োগিক দিক উল্লেখ করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস ও সার্বজনীন মানবাধিকার ঘোষণার প্রেক্ষাপট :
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে প্রায় ৫ কোটি মানুয়ের নির্মম মৃত্যু সকলের মনে একটা দাগ কাটে। এরই প্রেক্ষাপটে ১৯৪১ সালের ১৪ আগস্ট আটলান্টিক সনদে স্বাক্ষরদানের সময় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কলিন রুজভেল্ট ও যুক্তরাজ্যের উইনস্টন চার্চিল ঘোষণা দেন যে তার নাৎসি বাহিনী বা অক্ষ বাহিনীর নির্যাতনের অবসানের পর এমন এক বিশ্বব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করবেন যেখানে সকল দেশের সকল মানুষের ভয় ও অভাব থেকে মুক্ত হয়ে স্বাধীনভাবে জীবনযাপন করতে পারবে। অবশ্যই এর কিছু দিন আগে রুজভেল্ট তার চতুর্বিধ স্বাধীনতার কথা ঘোষণা করেন। যার মধ্যে ছিল: বাক ও ভাব প্রকাশের স্বাধীনতা, স্বীয়পণে ঈশ্বরের উপাসনার স্বাধীনতা, অভাব থেকে মুক্তি এবং সকল প্রকার ভয় থেকে মুক্তি।
১৯৪৫ সালের দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষের দিকে একে বিশ্ব নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন দেশে সভা সম্মেলন করে বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় একটি আন্তর্জাতিক সংগঠন প্রতিষ্ঠার পক্ষে জনমত গঠন করতে থাকেন। এর মধ্যে ক্যাসাব্লাংকা, কুইবেক, মস্কো, কায়রো, তেহরান ও ইয়ালটার উল্লেখযোগ্য। আমেরিকার ডাম্বারটনওকস এর এক বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় সংগঠনটির নাম হবে সম্মিলিত জাতিসংঘ। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১৯৪৫ সালের ২৫ এপ্রিল থেকে ২৬ জুন সানফ্রান্সিকোতে ২৫টি দেশের প্রতিনিধি মিলে রচনা করেন জাতিসংঘ সনদ, যা ২৪ অক্টোবর থেকে কার্যকর করা হয়। অবশ্য বিশ্ব নেতৃবৃন্দের এই কমিটমেন্ট এবং বিভিন্ন শান্তিকামী সঙ্ঘের প্রভাব লক্ষ করা যায় জাতিসংঘ সনদের চূড়ান্ত খসড়ায়। এই খসড়ার ৮৫টি অনুচ্ছেদের মধ্যে ৭টি অনুচ্ছেদে বিশ্বব্যাপী মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার কথা উল্লেখ করা হয় এবং সুপ্রশস্ত হয় মানবাধিকার কাউন্সিল গঠনের পথ।
জাতিসংঘ সনদের ৬৮ নং অনুচ্ছেদ অনুযায়ী অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদ মানবাধিকার ও মৌলিক স্বাধীনতা রক্ষার জন্য বিভিন্ন কমিশন গঠন করার ক্ষমতাপ্রাপ্ত হন। সেই ক্ষমতা প্রয়োগ করে ১৯৪৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদ মানবাধিকার কমিশন গঠন করে। একই বছর কমিশনের প্রথম অধিবেশনে এই কমিশনকে একটি International Bill of Rights তৈরির দায়িত্ব দেয়া হয়। ১৯৪৭ সালের জানুয়ারি মাসের প্রথম অধিবেশনে কমিশনে এই বিল তৈরির জন্য মিসেস এলিনর রুজভেল্টের নেতৃত্বে ৯ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে। উক্ত কমিটি মানবাধিকার ঘোষণাপত্রের খসড়া প্রস্তুত করে অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদের মাধ্যমে সাধারণ পরিষদে পেশ করে।
১৯৪৮ সালে প্যারিসে অনুষ্ঠিত সাধারণ পরিষদের তৃতীয় অধিবেশনে খসড়া ঘোষণাপত্রটি আলোচ্যসূচির শুরুতে রাখা হয়। এই সময় সনদের প্রতিটি শব্দ ও বাক্যাংশের ওপর ১৪০০ বার ভোট নেয়া হয়। একই বছর (১৯৪৮) ১০ ডিসেম্বর প্যারিসের ফারি নগরীতে অনুষ্ঠিত জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ঘোষণাটি গৃহীত হয়। এই অধিবেশনে জাতিসংঘের ৫৮টি সদস্য রাষ্ট্রের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। ৪৮ জন পক্ষে ভোট দেন আর সোভিয়েত ব্লকের ৬টি রাষ্ট্রসহ ৮টি রাষ্ট্রের প্রতিনিধি ভোটদানে বিরত থাকেন। কেউ ঘোষণাটির বিপক্ষে ভোট দেননি। এই ঘোষণাপত্রে ৩০টি ধারা রয়েছে যা মানুষের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অধিকারের আলোকে অন্তর্ভুক্ত করেছে। এই ঘোষণাপত্র প্রণয়নের অন্যতম প্রধান ব্যক্তি ছিলেন ফ্রান্সের রনে ক্যাসা যিনি একে জাতিসংঘ সনদের এক কর্তৃত্বব্যঞ্জক ব্যাখ্যা বলে ঘোষণা করেন। এই ঘোষণাটি কার্যকর করার জন্য জাতিসংঘ অনেকগুলো পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে, যার ফলশ্রুতিতে জাতিসংঘের অধিকাংশ সদস্যরাষ্ট্র নিজ দেশের সংবিধানে এই ঘোষণাগুলোকে অন্তর্ভুক্ত করে নিয়েছে। গঠিত হয়েছে ইউরোপ, আফ্রিকা এবং ল্যাটিন আমেরিকা আঞ্চলিক মানবাধিকার কনভেনশন। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন চুক্তি ঘোষণার মাধ্যমে মানবাধিকার সারা পৃথিবীতে আজ শুধু একটি ঘোষণাই নয় বরং আইনে পরিণত হয়েছে।
মানবাধিকারের সার্বজনীন ঘোষণাপত্রকে (UDHR) মানবাধিকারের মহাসনদ বলা হয়ে থাকে। এটা একটি ঘোষণাপত্র যা পালন করতে রাষ্ট্রগুলোর বাধ্যবাধকতা নেই। তবে এই ঘোষণাপত্রকে কার্যকরী করার জন্য ১৯৬৬ সালে জাতিসংঘে দু’টি প্রটোকল স্বাক্ষরিত হয় যা (ICCPR) ও (ICESCR) নামে পরিচিত। এই প্রটোকল অনুযায়ী মানবাধিকারগুলোকে ২ ভাগে ভাগ করা যায়। নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার এবং অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অধিকার। যদিও এ ভাগের পেছনে বৈশ্বিক রাজনীতি জড়িত। পশ্চিমা বিশ্ব নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকারকে বেশি সোচ্চার এবং সমাজতান্ত্রিক ও তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলো অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অধিকারকে প্রাধান্য দেয়।

মূল্যায়ন
সার্বজনীন মানবাধিকার ঘোষণার ৭০তম বছরে এসে আজকে এই কথাটি সবাইকে একবাক্যে স্বীকার করতে হবে, যে মানবাধিকার ঘোষণাপত্রটি যে উদ্দেশ্য নিয়ে গৃহীত হয়েছিল এই দীর্ঘ পথপরিক্রমায় তা অর্জনে সম্পূর্ণ ব্যর্থ না হলেও অনেকাংশেই ব্যর্থ হয়েছে। এই কথা ঠিক জাতিসংঘ প্রতিষ্ঠা ও তার মানবাধিকার সার্বজনীন ঘোষণাপত্র অনুমোদনের পর প্রথম ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ন্যায় কোনো ভয়াবহ বিশ্বযুদ্ধ হয়নি। কিন্তু ভিয়েতনাম যুদ্ধ, কোরিয়ান গৃহযুদ্ধ, উপসাগরীয় যুদ্ধ, আবর-ইসরাইল যুদ্ধ, ইরাক-ইরান যুদ্ধ, বলকান যুদ্ধ, ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ, যৌথবাহিনীর নামে আফগানিস্তান, ইরাকে হামলায় লক্ষ-কোটি মানুষের মৃত্যু মানবাধিকার ঘোষণাপত্র ও জাতিসংঘের কার্যকারিতাকে করেছে প্রশ্নবিদ্ধ। দীর্ঘ কয়েক যুগ ধরে চলমান ফিলিস্তিন ও কাশ্মির সমস্যা, সাম্প্রতিক সময়ের ভয়াবহ সিরিয়া, ইয়েমেন, লিবিয়াসঙ্কট এবং মিয়ানমারে সেনাবাহিনী ও সংখ্যাগরিষ্ঠ সন্ত্রাসী কর্তৃক সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর পরিচালিত গণহত্যা বিশ্বের মানবতাবাদী মানুষকে আশাহত করেছে। এ ছাড়া বছরের পর বছর ধরে মানবাধিকার দিবস পালন, বিশ্বব্যাপী শত সহস্র মানবাধিকার সংগঠন ও মানবাধিকারকর্মীদের ব্যাপক তৎপরতার পরও ক্রমবর্ধমান ধনী-গরিবের বৈষম্য, নারী-শিশু নির্যাতন, উদ্বাস্তু জনগোষ্ঠীর মানবেতর জীবন মানবাধিকার দিবসের উজ্জ্বলতাকে অনেকটাই ম্লান করে দেয়।

 
 
 

আরও পড়ুন

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের সুস্থতা কামনায় সৌদিআরব বিএনপির দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা।

প্রবাসীদের পছন্দের প্রার্থী অধ্যক্ষ সিপার উদ্দিন আহমেদ

আহমেদ আলি মুকিব সুবর্ণ জয়ন্তীর আহ্বায়ক হওয়াই সৌদি আরব জাসাস এর উষ্ণ শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। 

৫ জানুয়ারি নির্বাচনের নামে ভোটের অধিকার কেড়ে নেওয়া হয়েছে’ আহমদ আলী মুকিব,

সাদাকে সাদা কালোকে কালো বলুনঃ দৈনিক দেশ বার্তা’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে মফিজুর রহমান।

যুবদল আহ্বায়ক আব্দুল মান্নান এর মাতা মরহুম আছিয়া খাতুন, স্মরনে চট্টগ্রাম ফোরামের দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত। 

আব্দুল মান্নান এর মায়ের মৃত্যুতে সৌদি আরব বিএনপির সভাপতি আহমদ আলী মুকিবের শোক প্রকাশ

আজ জেদ্দায় আরাফাত রহমান কোকো স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্ট,চট্টগ্রাম বনাম সিলেট সুপার স্টার,

সৌদি আরব প্রবাসী শরিয়তপুর কল্যাণ সমিতির অভিষেক অনুষ্ঠিত হয়

আওয়ামী দুঃশাসন আর দূর্নীতিতে ঢাকা আজ ক্যাসিনো রাজ্যে পরিনত হয়েছে, তারেক রহমান, বি এন পির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান,

অন্যের স্ত্রী নিয়ে পালিয়ে গেলেন ফ্রান্স আওয়ামী লীগ এর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রানা চৌধুরী। হতবাক কমিউনিটি

প্রবাসীর স্ত্রীকে ভাগিয়ে নিলো তিন সন্তানের জনক মধুখালীর পোল্ট্রি ফিড বিক্রেতা রুমি।

দুর্গা পুজা সকল ধর্মের লোকদের উৎসব প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে-নায়ক আলমগীর

শুভেচ্ছা ব্যান্ডের ভার্চুয়াল লাইভ শো তে আজ আসছেন সুপার হিট নায়িকা সাহানুর ও চ্যানেল আই সেরা কন্ঠের নান্নু-আজ রাত ৬-৩০মিঃ

সালাউদ্দিন সরকার সভাপতি, নুর আলম সাধারণ সম্পাদক ও রবিউল ইসলাম টিটুকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে কান্দারা যুবদল ঘোষণা,

জাতীয়তাবাদী প্রবাসী বিএনপি পরিবার ওয়ার্ল্ড অনলাইন এর আত্বপ্রকাশ।

মির্জা মিলনের জনপ্রিয়তায় ভীত হয়ে অপপ্রচার, প্রতিবাদে মিলনের সংবাদ সম্মেলন

চট্টগ্রাম শহরের একটি বিশেষ দোকান! “পীতাম্বর শাহ”, ৩৩২ নং, বক্সির হাট, চট্টগ্রাম

যুবদলের যূগ্ন আহ্বায়ক হুমায়ুন কবির এর মায়ের মৃত্যুতে বি এন পির উপদেষ্টা আলহাজ্ব আব্দুর রহমান এর শোক প্রকাশ।

বাংলাদেশ বিমানকে কোটি টাকা জরিমানা করেছে সৌদি আরব।

 

Top
ব্রেকিং নিউজ :
Shares